1. jashimsarkar@gmail.com : admin :
  2. adminmonir@germanbangla24.com : monir uzzaman : monir uzzaman
  3. fatama.ruma007@gmail.com : Fatama Rahman Ruma : Fatama Rahman
  4. anikbd@germanbangla24.com : SIDDIQUE ANIK : ANIK SIDDIQUE
  5. infi@germanbangla24.com : Hasan Imam Juwel : Hasan Imam Juwel
  6. rafid@germanbangla24.com : rafid :
  7. SaminRahman@germanbangla24.com : Samin Rahman : Samin Rahman
শিরোনাম :
লেবাননে প্রবাসী অধিকার পরিষদের ইফতার মাহফিল বেগম জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেবে সরকার : অ্যাটর্নি জেনারেল করোনা : ভারতে শনাক্ত ২ কোটি ছাড়াল করোনা : বিধিনিষেধ আবারও বাড়ল, চলবে না দূরপাল্লার বাস অল ইউরোপ বাংলাদেশ প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফয়সাল ও সম্পাদক ফারুক মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিল জামালপুরে নতুন কমিটি গঠন জেলহাজতে শিশু বক্তা রফিকুল ইসলাম মাদানী জার্মানবাংলা’র ‘মিউজিক্যাল লাইভ শো’র এবারের অতিথি কণ্ঠশিল্পী “আঁখি হালদার” আয়েবপিসি’র কার্যনির্বাহী পরিষদের বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত জার্মানবাংলা’র ”প্রবাসির সাফল্য” শো’র এবারের অতিথি ”শিরীন আলম”

১১ মাসে ৯২ কেজি ওজন কমালেন সিমন অ্যান্ডারসন

জার্মানবাংলা২৪ রিপোর্ট :
  • প্রকাশের সময়: বুধবার, ২৫ এপ্রিল, ২০১৮
Check for details

নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ডের সিমন অ্যান্ডারসনের বয়স যখন ২৩ বছর তখন তার ওজন ছিল ১৬৯ কেজি। অল্প বয়সে এমন ভয়ানক মুটিয়ে যাওয়ায় দৈনন্দিন কাজসহ ব্যক্তিগত জীবনে নানাবিধ সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছিলেন তিনি। তাই নিরুপায় হয়ে অ্যান্ডারসন পণ করেন, যেভাবেই হোক ওজন কমাবেন।

অ্যান্ডারসনের বয়স যখন ২৭ বছর তখন তিনি ওজন কমানোর সিদ্ধান্ত নেন এবং কঠিন পরিশ্রম শুরু করেন। সেই পরিশ্রমে মাত্র ১১ মাসের ব্যবধানে ৯২ কেজি ওজন কমিয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন তিনি। বর্তমানে অ্যান্ডারসনের ওজন ৭৭ কেজি।

কিন্তু কী করে এত ওজন কমালেন সিমন অ্যান্ডারসন। বৃট্রিশ গণমাধ্যম ডেইলি মেইলের কাছে সেই তথ্যই ফাঁস করেছেন তিনি।

ডেইলি মেইলের প্রতিবেদনে জানানো হয়, ওজন কমানোর ওই প্রক্রিয়া মোটেও সহজ ছিল না অ্যান্ডারসনের। এজন্য তাকে কঠোর পরিশ্রম আর নিয়ন্ত্রণের মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে। সেই কষ্টের কথা স্বীকারও করেছেন অ্যান্ডারসন।

এ বিষয়ে অ্যান্ডারসন জানান, প্রথমে তিনি প্রতিদিন জিমে যেতেন এবং নিয়ম করে এক ঘণ্টা শারীরিক ব্যায়াম করতেন। তাতেও খুব একটা সুবিধা না হলে শুরু করেন হাঁটা এবং সাঁতার। কিন্তু তার এ চেষ্টাও কার্যত বিফল হয়। তবে তার এনার্জি লেভেল একটু বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে জিমে যাওয়াসহ বন্ধ করে দেন সব ধরনের বাইরের খাবার খাওয়া।

অ্যান্ডারসন আরও জানান, সব সময় বাড়িতে বানানো খাবার খেতেন তিনি। এরপর গ্যাস্ট্রিক স্লিভ অস্ত্রোপচার করান। এতেই তার পেটের মেদ অনেকটা কমে যায়।

শেয়ার করুন:
এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ফেসবুকে জার্মানবাংলা২৪

বিজ্ঞাপন

Check for details