1. jashimsarkar@gmail.com : admin :
  2. adminmonir@germanbangla24.com : monir uzzaman : monir uzzaman
  3. fatama.ruma007@gmail.com : Fatama Rahman Ruma : Fatama Rahman
  4. anikbd@germanbangla24.com : SIDDIQUE ANIK : ANIK SIDDIQUE
  5. infi@germanbangla24.com : Hasan Imam Juwel : Hasan Imam Juwel
  6. rafid@germanbangla24.com : rafid :
  7. SaminRahman@germanbangla24.com : Samin Rahman : Samin Rahman
শিরোনাম :
জার্মানিতে বিএনপি’র কর্মীসভা ‘বর্তমান সরকার উন্নয়নের সরকার’ : এমপি ছেলুন জোয়ার্দ্দার জার্মান বিএনপির হেছেন প্রাদেশিক কমিটির কর্মী সভা অনুষ্ঠিত জার্মানির মানহাইমে জমজমাট ঈদ পুনর্মিলনী ও গ্রিল পার্টি লেবাননে শাহ্জালাল প্রবাসী সংগঠনের দ্বশম বর্ষ পূর্তি উদযাপন ও সভাপতিকে বিদায়ী স্বংবর্ধনা করোনা টিকার প্রসঙ্গে ও করোনার তৃতীয় ঢেউ: মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া রাষ্ট্রদূত, জার্মানি বাংলাদেশ জার্মান জাতীয়তাবাদী কালচারাল অ্যাসোসিয়েশনের বনভোজন অনুষ্ঠিত ঝালকাঠিতে সেপটি ট্যাংকের সেন্টারিং খুলতে গিয়ে নিহত ২ জামালপুরে ‘বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন’ এর মাক্স বিতরণ করোনা : সখীপুরে লকডাউন বিধিনিষেধ অমান্য করায় জরিমানা

সিরিয়ায় শতাধিক মিসাইল ছোড়া হয়: রাশিয়া

জার্মানবাংলা২৪ রিপোর্ট :
  • প্রকাশের সময়: শনিবার, ১৪ এপ্রিল, ২০১৮
Check for details

ঢাকা: সিরিয়ায় প্রায় শতাধিক মিসাইল নিক্ষেপ করেছে মার্কিন মিত্ররা এবং এসব মিসাইলের অনেকগুলো ভূ-পাতিত করেছে সিরিয়ার এয়ার ডিফেন্স।

শনিবার (১৪ এপ্রিল) ভোররাতে সিরিয়ার ওপর যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও কানাডার একযোগে চালানো মিসাইল হামলার প্রতিক্রিয়ায় এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানায় রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। বিবৃতিতে এটাও বলা হয়, মিসাইল প্রতিহত করাতে রাশিয়ান প্রতিরক্ষার কোনো ইউনিট জড়িত ছিল না।

বিবৃতিতে বলা হয়, এ হামলায় যুদ্ধবিমান ও যুদ্ধজাহাজ থেকে মার্কিনবাহিনী ও তাদের মিত্ররা শতাধিক মিসাইল নিক্ষেপ করে। মিসাইলগুলো ছিল ক্রুজ মিসাইল ও এয়ার-সারফেস (আকাশ থেকে ভূমি অভিমুখে ছোড়া) মিসাইল।

লোহিত সাগরে অবস্থানরত দু’টি মার্কিন যুদ্ধজাহাজের মাধ্যমে হামলাটি পরিচালনা করা হয়। তাছাড়া সিরিয়ার হোমস প্রদেশে মার্কিন জোটের বিমানঘাঁটি থেকে ‘রকওয়েল বি-১’ বোমার যুদ্ধবিমান সিরীয় অবস্থানে বোমা হামলা চালায়।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়য় আরও জানায়, দামেস্কের ৪০ কিমি দূরের আল-দুমাইর এয়ারপোর্ট লক্ষ্য করে ১২টি ক্রুজ মিসাইল ছোড়া হয়।মিসাইলগুলোর প্রতিটিকেই সিরিয়ান এয়ার ডিফেন্স ভূ-পাতিত করে।

মিসাইলগুলো ভূ-পাতিত করতে রাশিয়ার তৈরি সারফেস-টু-এয়ার (ভূমি থেকে আকাশের দিকে ছোড়া) মিসাইল ব্যবহার করে দামেস্ক। কিন্তু রাশিয়া কোনো অংশ নেয়নি।

হামলার পরপর একটি পৃথক বিবৃতিতে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছিল, মার্কিন মিত্রদের ছোড়া মিসাইলগুলোর কোনোটিই সিরিয়ার তারতুস ও খোমেইমিম শহরে অবস্থিত রাশিয়ান এয়ার ডিফেন্স জোনে পৌঁছায়নি।

শনিবার (১৪ এপ্রিল) ভোররাতে রাসায়নিক হামলার জন্য সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের বাহিনীকে দায়ী করে বিভিন্ন সরকার-নিয়ন্ত্রিত স্থাপনার ওপর একযোগে হামলা শুরু করে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স। এ হামলাটিকে দেশটির ওপর পশ্চিমা শক্তির সবচেয়ে বড় হস্তক্ষেপ বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

এদিকে বেশ কিছুদিন ধরেই সিরিয়াতে এমন বড় ধরনের হামলার হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করা আসছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আর এ নিয়ে পাল্টা হুঁশিয়ারি জানিয়ে রাশিয়ার পক্ষ থেকে বলা হয়, সিরিয়ায় যেসব স্থাপনায় রুশ বিশেষজ্ঞরা রয়েছেন সেসব স্থাপনায় কোনো মিসাইল ছোড়া হলে তা ভূ-পাতিত করা হবে এবং তা নিক্ষেপের উৎসগুলোকে টার্গেট করে প্রতিশোধমূলক পাল্টা হামলা চালানো হবে।
প্রতিক্রিয়ায় ট্রাম্প টুইট করেন, প্রস্তুত থেকো রাশিয়া, মিসাইল আসবেই। আর এবারের মিসাইলগুলো হবে ‘নিউ’, ‘নাইস’ এবং ‘স্মার্ট’।

গত ক’দিন ধরেই এ নিয়ে আন্তর্জাতিকমহলে চরম উত্তেজনা বিরাজ করে আসছে।

শেয়ার করুন:
এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ফেসবুকে জার্মানবাংলা২৪

বিজ্ঞাপন

Check for details