1. jashimsarkar@gmail.com : admin :
  2. fatama.ruma007@gmail.com : Fatama Rahman Ruma : Fatama Rahman Ruma
  3. anikbd@germanbangla24.com : Editor : Editor
  4. rafid@germanbangla24.com : rafid :
  5. SaminRahman@germanbangla24.com : Samin Rahman : Samin Rahman
শিরোনাম :
গাজীপুরে লকডাউন অমান্য করে প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দরিদ্র কর্মহীন ৩’শ পরিবারের মাঝে নৌবাহিনীর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ পৃথক পৃথক জায়গায় করোনার উপসর্গ নিয়ে আরো ৯ জনের মৃত্যু করোনার ত্রাণ বিতরণে অনিয়ম: তিন সাংবাদিক লাঞ্ছিত ঈশ্বরগঞ্জে খেলা নিয়ে সংঘর্ষ : আহত ৫ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের তত্ত্বাবধানে সাতক্ষীরায় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করোনা রুখতে সুবর্ণচরে যুবদল-ছাত্রদলের জরুরী পণ্য বিতরণ ও মাইকিং মালয়েশিয়ায় অসহায় বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের জন্য (বিএসইউএম) জরুরি তহবিল সংগ্রহ শৈলকুপায় সহস্রাধিক দরিদ্র পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ চলমান যুদ্ধে সাধারণ জনগণের পাশে ঝিনাইদহের পুলিশ সুপার




শ্যামগঞ্জ-বিরিশিরি সড়ক এখন মৃত্যু ফাঁদ

সোহান আহমেদ কাকন,প্রতিনিধি নেত্রকোনা:
  • প্রকাশের সময়: রবিবার, ১ মার্চ, ২০২০
  • ৩৪৬ বার পড়া হয়েছে
Check for details

নেত্রকোনা জেলার শ্যামগঞ্জ-বিরিশিরি সড়কে প্রতিনিয়ত ঘটনা দুর্ঘটনা। সড়কটি এখন পরিণত হয়েছে মৃত্যু ফাঁদে। অদক্ষ ড্রাইবার ও অতিরিক্ত বালুবাহী ট্রাক ও লরির বেপরোয়া গতির কারণেই এমন দুর্ঘটনা ঘটছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। ২৯ ফেব্রুয়ারি (শনিবার) রাতে পিকনিক থেকে ফেরার পথে এসএসসি ফলপ্রত্যাশী পাঁচ শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ঘটনায় বিক্ষুব্ধ জনতা সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ অব্যাহত রেখেছেন। আজ ১ মার্চ (রবিবার) সকাল থেকে দূর্গাপুর উপজেলা বিভিন্ন পয়েন্টে নিরাপদ সড়কের দাবিতে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেন স্থানীয়রা।

দীর্ঘদিনের দাবির প্রেক্ষিতে নেত্রকোনার সীমাবর্তী উপজেলা দুর্গাপুরের পর্যটন শিল্প ও খনিজ সম্পদকে প্রাধান্য দিয়ে গত বছর সড়ক ও জনপথ বিভাগের আওতায় শ্যামগঞ্জ থেকে বিরিশিরি পর্যন্ত ৩৫ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়। ৩শ’ ১৬ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়কটি নির্মাণে অনেকটাই স্বস্তি ফিরে পর্যটকসহ স্থানীয়দের মাঝে। কিন্তু সড়কটি ভালো হওয়ার পর থেকে বেপরোয়া হয়ে উঠেন দুর্গাপুরের সোমেশ্বরী নদীর বালু ব্যবসায়ীরা। প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অতিরিক্ত বালু পরিবহন করে চলাচল করে কয়েক হাজার ট্রাক ও লরি। অদক্ষ ড্রাইভারের বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানোর ফলে প্রতিনিয়তই ঘটছে দুর্ঘটনা। শনিবার রাতে পিকনিক শেষে বাড়ি ফেরার পথে শান্তিপুর এলাকায় ট্রাক ও লরীর চাপায় ৫ শিক্ষার্থী নিহত হয়।

সড়কটির দুই পাশে অসংখ্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থাকলেও নেই কোন গতি প্রতিরোধক ব্যবস্থা। তাই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ গুরত্বপূর্ণ বাজারগুলোতে গতি প্রতিরোধক ব্যবস্থা নেয়ার দাবি ভুক্তভোগীদের।

চালকদের অদক্ষতার কারণেই সড়ক দুর্ঘটনার বেড়েছে বলে মন্তব্য করেন সড়ক ও জনপথ বিভাগ নির্বাহী প্রকৌশলী দিদারুল আলম তরফদার।

গতি নিয়ন্ত্রণে স্পীডগান বসানোর উদ্যোগ নেয়ার কথা জানিয়েছেন, পুলিশ সুপার আকবর আলী মুনসী। গতিরোধে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার কথা জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক মঈনউল ইসলাম।

উল্লেখ্য, সরকারি হিসেবে গত ৬ মাসে কমপক্ষে অর্ধশতাধিক প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। তাই শুধু আশ্বাস নয় বেপরোয়া গতি নিয়ন্ত্রণে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে প্রশাসন। এমন প্রত্যাশা জনসাধারণের।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ফেসবুকে জার্মানবাংলা২৪

বিজ্ঞাপন

Check for details