1. jashimsarkar@gmail.com : admin :
  2. adminmonir@germanbangla24.com : monir uzzaman : monir uzzaman
  3. fatama.ruma007@gmail.com : Fatama Rahman Ruma : Fatama Rahman
  4. anikbd@germanbangla24.com : SIDDIQUE ANIK : ANIK SIDDIQUE
  5. infi@germanbangla24.com : Hasan Imam Juwel : Hasan Imam Juwel
  6. rafid@germanbangla24.com : rafid :
  7. SaminRahman@germanbangla24.com : Samin Rahman : Samin Rahman
শিরোনাম :
লেবানন বিএনপির সভাপতি বাবু, সম্পাদক আইমান, সাংগঠনিক হাবিব সখীপুরে ‘মুক্তিযুদ্ধের কবিতা’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন নাইজেরিয়ায় ইসলামিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে প্রায় ২০০ শিশুকে অপহরণ ঘুর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে সাতক্ষীরার উপকুলীয় এলাকায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি লেবানন আ’লীগের সম্মেলন: সভাপতি বাবুল মিয়া, সম্পাদক তপন ভৌমিক সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্থা ও মিথ্যা মামলায় গ্রেফতারের ঘটনায় জামালপুর প্রেসক্লাবের প্রতিবাদ সখীপুর এস.পি.ইউ.এফ’র ১ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন লেবাননে প্রবাসী অধিকার পরিষদের ইফতার মাহফিল বেগম জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেবে সরকার : অ্যাটর্নি জেনারেল করোনা : ভারতে শনাক্ত ২ কোটি ছাড়াল

মাদক নির্মূলে কঠোর মনোভাব প্রকাশ করলেন প্রধানমন্ত্রী

জার্মানবাংলা২৪ রিপোর্ট :
  • প্রকাশের সময়: বৃহস্পতিবার, ৩১ মে, ২০১৮
Check for details

জার্মান-বাংলা ডেস্ক: মাদক নির্মূলে চলমান অভিযানে নিজের কঠোর মনোভাবের কথা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমি যখন ধরি, ভালো করেই ধরি। কেউ ছাড় পাবে না। ভারত সফর শেষে বুধবার (৩০ মে) গণভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।
মাদকবিরোধী অভিযানে বন্দুকযুদ্ধের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে প্রধানমন্ত্রী বলেন, অভিযান চালাতে গিয়ে বন্দুকের ব্যবহার হচ্ছে, আপনার এর আইনগত দিক থেকে বলবেন এটা ঠিক। কিন্তু মাদকের বিরুদ্ধে অভিযানে গেলে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটে। এটাকে অন্যায়ভাবে ব্যবহার হলে বিচার হয়। নিরীহ মানুষ এর শিকার হলে আমরা ব্যবস্থা নেব।
এসময় সাংবাকিদের উদ্দেশে তিনি বলেন, যদি অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাটাই বড় করে দেখান, তাহলে বলেন অভিযান বন্ধ করে দেই। তাহলে সমাজ কিভাবে ভালো থাকবে! ছেলে মা-বাবাকে, ভাই ভাই-বোনকে হত্যা করছে- এর সবই মাদকের জন্য। আপনারা এগুলো নিয়ে পত্রপত্রিকায় লিখেছেন- মাদক সমাজে ব্যাধির মত। যখন অভিযান চলছে, এখন আবার আপনারা পুঙ্খানুপুঙ্খ বিচার বিশ্লেষণ শুরু করেছেন।
মাদকের গডফাদাররা অভিযানের আওতায় আসবে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, কে গডফাদার, কে ডন এটা আমরা বিচার করছি না। আমরা চাই মাদক নির্মূল হোক। দীর্ঘদিন গোয়েন্দা সংস্থা এনিয়ে কাজ করছে। আমরা হঠাৎ করে এই অভিযানে যাইনি।
তিনি বলেন, দীর্ঘদিনের নজরদারির পর আমরা অভিযানে গেছি। যেই গডফাদার হোক, অভিযানের আওতায় আসবে। কে কার ভাই কার কী আমি দেখি না। আমি যখন ধরি, ভালো করেই ধরি- আপনারা জানেন। তাই কেউ ছাড় পাবে না।
এসময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ-ভারত দুই নিকটতম প্রতিবেশী দেশ। আমি মনে করি, এই সফরের মধ্য দিয়ে দুই দেশের বিদ্যমান সুসম্পর্ক আরও সুদৃঢ় হয়েছে। শন্তিনিকেতনে স্থাপিত বাংলাদেশ ভবন উভয় দেশের মধ্যে বিদ্যমান সাংস্কৃতিক বন্ধনকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাবে।

শেয়ার করুন:
এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ফেসবুকে জার্মানবাংলা২৪

বিজ্ঞাপন

Check for details