মসজিদে অগ্নিসংযোগ হলো ইফতারের আগেই

In this photo provided by Lina Biroscak, a fire burns at a mosque, Sunday, May 12, 2019, in New Haven, Conn. It was not immediately clear what caused the fire. (Lina Biroscak via AP)
Check for details

জার্মান-বাংলা ডেস্ক:
এবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মসজিদে ইফতারের পূর্বে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে কিছু দূর্বৃত্তরা।  আজ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে উগ্র মৌলবাদী গোষ্ঠী বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান আগুন, গোলাগুলি ও বোমা বিস্ফোরণ করে সাধারণ মানুষ হত্যায় মত্ত। আজ পৃথিবীর কোন রাষ্ট্রেই যেন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলো নিরাপদ নয়।
রমজান শুরু হওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রের কানেকটিকাটের নিউ হ্যাভেন শহরে দিয়ানাত মসজিদে প্রতিদিনই শত শত মুসলমান ইফতার করেন। এরপর বন্ধু ও স্বজনদের নিয়ে তারাবিহ নামাজ পড়তে জমায়েত হন।

কিন্তু রোববারের এক ঘটনা তাদের জন্য যার-পরনাই বেদনায়ক খবর নিয়ে এসেছে। বিকাল ৪টার আগেই মসজিদটিতে আগুন ধরে যায়। মসজিদটি এমনভাবে পুড়ে গেছে, যাতে আর নামাজ কিংবা ইফতার করা সম্ভব না।-খবর নিউ ইয়র্ক টাইমসের

তবে সোমবার শহর কর্তৃপক্ষ নতুন এক মর্মান্তিক খবর দিলেন, যাতে বলা হয়েছে মসজিদটিতে ইচ্ছাকৃতভাবেই অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে।

তুর্কিশ-আমেরিকান রিলিজিয়াস ফাউন্ডেশনের কানেকটিকাট শাখার প্রেসিডেন্ট হায়দার এলেভি বলেন, এতে আমরা সবাই ব্যথিত হয়েছি। এখন সবাই দুঃখিত।

কর্তৃপক্ষ বলছেন, মসজিদটিতে কেন আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়েছে, তা এখনো পরিষ্কার না। অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় তদন্ত চলছে, এখনো কেউ গ্রেফতার হননি।

এলেভি বলেন, আগুনে কেউ হতাহত হননি। মসজিদটিতে ভালোই ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তবে নিউ হ্যাভেন অগ্নিনির্বাপণ দফতর থেকে বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

পুড়ে কয়লা হয়ে যাওয়া মসজিদটির সামনে সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে অগ্নিনির্বাপণ বিভাগের প্রধান জন অ্যালস্টোন বলেন, এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় কেন্দ্রীয় আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা সহায়তা করছে।

এক সংবাদ সম্মেলনে গভর্নর নেড ল্যামন্ট বলেন, এ ধরনের হামলা অবশ্যই বেদনাদায়ক ও বিদ্বেষপূর্ণ।
উগ্র জাতীয়তাবাদ আর উগ্র মৌলবাদ এর নগ্ন উন্মত্ততায় ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলো হয়ে উঠেছে লক্ষ্যবস্তু।

Facebook Comments