1. jashimsarkar@gmail.com : admin :
  2. adminmonir@germanbangla24.com : monir uzzaman : monir uzzaman
  3. fatama.ruma007@gmail.com : Fatama Rahman Ruma : Fatama Rahman
  4. anikbd@germanbangla24.com : SIDDIQUE ANIK : ANIK SIDDIQUE
  5. infi@germanbangla24.com : Hasan Imam Juwel : Hasan Imam Juwel
  6. rafid@germanbangla24.com : rafid :
  7. SaminRahman@germanbangla24.com : Samin Rahman : Samin Rahman
শিরোনাম :
জার্মানির মানহাইমে জমজমাট ঈদ পুনর্মিলনী ও গ্রিল পার্টি লেবাননে শাহ্জালাল প্রবাসী সংগঠনের দ্বশম বর্ষ পূর্তি উদযাপন ও সভাপতিকে বিদায়ী স্বংবর্ধনা করোনা টিকার প্রসঙ্গে ও করোনার তৃতীয় ঢেউ: মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া রাষ্ট্রদূত, জার্মানি বাংলাদেশ জার্মান জাতীয়তাবাদী কালচারাল অ্যাসোসিয়েশনের বনভোজন অনুষ্ঠিত ঝালকাঠিতে সেপটি ট্যাংকের সেন্টারিং খুলতে গিয়ে নিহত ২ জামালপুরে ‘বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন’ এর মাক্স বিতরণ করোনা : সখীপুরে লকডাউন বিধিনিষেধ অমান্য করায় জরিমানা করোনা : সাতক্ষীরা পুলিশের মোটরসাইকেল র‌্যালি ও মাস্ক বিতরণ লেবানন বিএনপির সভাপতি বাবু, সম্পাদক আইমান, সাংগঠনিক হাবিব সখীপুরে ‘মুক্তিযুদ্ধের কবিতা’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

ভৈরবে আবাসিক হোটেল থেকে খদ্দেরসহ ১৮ জন আটক

জার্মানবাংলা২৪ রিপোর্ট :
  • প্রকাশের সময়: শুক্রবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
Check for details
রাজীবুল হাসান, ভৈরব প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জের ভৈরবে আবাসিক হোটেলে অভিযান চালিয়ে ১০ জন পতিতা একজন মালিক ও ৭ জন খদ্দেরকে আটক করেছে কিশোরগঞ্জ ডিবি পুলিশের একটি টিম। বৃহস্পতিবার গভীররাতে কিশোরগঞ্জ জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(অপরাধ) শফিকুল ইসলামে নেতৃত্ব এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।
পুলিশ সুত্রে জানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কিশোরগঞ্জ  জেলা পুলিশের একটি টিম ভৈরবের দুটি আবাসিক হোটেলে অভিযান চালায়। হোটেল দুটি হল হোটেল শৈবাল ও হোটেল সোনালী। এসময় হোটেল শৈবাল থেকে হোটেল মালিক হান্নান মিয়া, হোটেল ম্যানেজার মফিজ মিয়া ও স্টাফ আবু ছালেক ও একজন খদ্দের সোহেল মিয়াকে আটক করে। এ সময় পতিতা শিলা,সামীয়া,উর্মী ও লাবনীকে আটক করা হয়। অপরদিকে হোটেল সোনালী থেকে মালিক কর্মচারী না পাওয়া গেলেও তিন খদ্দের মাসুদ, আফতাবুল ও তানভিরসহ ৬ জন পতিতা পায়েল, শিখা, স্বপ্না, তাসলিমা, সুমী ও মুন্নীকে আটক করা হয়।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(অপরাধ) শফিকুল ইসলাম জানান, ভৈরবে এই হোটেলগুলোতে দীর্ঘ দিন যাবত দেহ ও মাদক ব্যবসা পরিচালিত হচ্ছে। পুলিশ সুপার মহোদয়ের নির্দেশক্রমে ডিবি পুলিশে অফিসার ইনচার্জ আবুবক্কর ছিদ্দিক মিয়াকে সাথে নিয়ে এই অভিযান পরিচালনা করি। ভৈরব থানা পুলিশকে না জানিয়ে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। তিনি আরো জানান ভৈরব একটি সুনামধন্য বন্দরনগরী। এলাকাবাসী যদি সহযোগিতা করে ভবিষ্যতেও এই অভিযান অব্যাহত থাকবে। অাটককৃতদের  ভৈরব থানায় সোপার্দ করা হয়েছে এবং তাদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে তিনি জানান ।
শেয়ার করুন:
এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ফেসবুকে জার্মানবাংলা২৪

বিজ্ঞাপন

Check for details