1. jashimsarkar@gmail.com : admin :
  2. adminmonir@germanbangla24.com : monir uzzaman : monir uzzaman
  3. fatama.ruma007@gmail.com : Fatama Rahman Ruma : Fatama Rahman
  4. anikbd@germanbangla24.com : SIDDIQUE ANIK : ANIK SIDDIQUE
  5. infi@germanbangla24.com : Hasan Imam Juwel : Hasan Imam Juwel
  6. rafid@germanbangla24.com : rafid :
  7. SaminRahman@germanbangla24.com : Samin Rahman : Samin Rahman
শিরোনাম :
জার্মানবাংলা’র ‘RJ মিউজিক্যাল লাইভ শো’তে এবার আসছে গানের দল “অন্তরীণ” হেসেন ফ্রাঙ্কফুর্ট আওয়ামীলীগ কর্তৃক বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উদযাপন অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০২২’ উপলক্ষ্যে ১১ দফা প্রস্তাব উত্থাপন জার্মানবাংলা’র “প্রবাসির সাফল্য” শো’র এবারের অতিথি কণ্ঠশিল্পী “শম্পা কুন্ডু” জার্মানবাংলা’র ‘মিউজিক্যাল লাইভ শো’র এবারের অতিথি কণ্ঠশিল্পী “সাজেদ ফাতেমী” স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তী স্বরণ ও দেশনেত্রী’র দোয়ায় বিএনপি’র জার্মানি শাখা। জীবননগরে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত ১ ব্রাসেলসে অল ইউরোপ বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের অভিষেক দুবাই ওয়ার্ল্ড এক্সপোতে অংশগ্রহণ করবে ওয়েন্ড-এর প্রতিনিধি দল গোধূলির ছায়া

বিষের বোতল ও ব্লেড নিয়ে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকা

জার্মানবাংলা২৪ রিপোর্ট :
  • প্রকাশের সময়: বুধবার, ৪ জুলাই, ২০১৮
Check for details

ফরিদপুর প্রতিনিধি : ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলায় বিয়ের দাবিতে বিষের বোতল ও ব্লেড নিয়ে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকা সুমিকা ধরনা দিয়ে পড়ে ছিলেন দুই দিন। পরে উভয় পরিবারের সম্মতিতে তাদের বিয়ে হয়। সোমবার সকাল থেকে মঙ্গলবার গভীর রাত পর্যন্ত উপজেলার আড়পাড়া ইউনিয়নের আড়পাড়া গ্রামের আ. হাই মল্লিকের বাড়িতে তার ছেলে প্রেমিক মিলনের সঙ্গে বিয়ের দাবিতে অবস্থান করেন কলেজছাত্রী সুমিকা।

মঙ্গলবার রাতে মিলনের বাড়িতেই তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়। বিয়েতে দেনমোহর ধার্য করা হয় দুই লাখ টাকা। কলেজছাত্রী সুমিকা কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলার সুলতানপুর গ্রামের কামাল হোসেনের মেয়ে। তিনি ভেড়ামাড়া সরকারি মহিলা কলেজের অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্রী। মিলন বর্তমানে ইসলামী আল আরাফা ব্যাংকে কামারখালী শাখায় চাকরি করছে।

বিয়ের দাবিতে অবস্থানরত সুমিকা বলেন, গত দেড় বছর আগে ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার আড়পাড়া ইউনিয়নের আড়পাড়া গ্রামের আ. হাই মল্লিকের ছেলে মিলন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে বিবিএ অধ্যয়নরত অবস্থায় আমার সঙ্গে পরিচয় হয়। এই পরিচয় থেকেই ভালোবাসার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। পরে আমাকে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে দৈহিক সম্পর্ক করে মিলন।

তিনি বলেন, ইতিমধ্যে আমার বাড়ি থেকে বিয়ের জন্য চাপ সৃষ্টি করলে আমি মিলনকে বিয়ের কথা বললে সে আমাকে এড়িয়ে চলতে থাকে। একপর্যায়ে আমি বিয়ের দাবিতে মিলনের বাড়িতে অবস্থান নেই।

সুমিকা আরও বলেন, আমার অবস্থানের পর আমার খোঁজ নিতে আসা আত্মীয়স্বজনদের ভয়ভীতি দেখাতে থাকে।

ইতিমধ্যে সাংবাদিকরা বিষয়টি নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোস্তফা মনোয়ার, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি ) মো. মনজুর হোসেন এবং মধুখালী থানার ওসি মো. মিজানুর রহমানের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলে। পরে ওইসব কর্মকর্তার উদ্যোগে উভয় পরিবারের মধ্যে বিয়ের বিষয়ে সমঝোতা হয়।

শেয়ার করুন:
এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ফেসবুকে জার্মানবাংলা২৪

বিজ্ঞাপন

Check for details