1. jashimsarkar@gmail.com : admin :
  2. adminmonir@germanbangla24.com : monir uzzaman : monir uzzaman
  3. fatama.ruma007@gmail.com : Fatama Rahman Ruma : Fatama Rahman
  4. anikbd@germanbangla24.com : germanbangla24.com : germanbangla24.com
  5. infi@germanbangla24.com : Hasan Imam Juwel : Hasan Imam Juwel
  6. rafid@germanbangla24.com : rafid :
  7. SaminRahman@germanbangla24.com : Samin Rahman : Samin Rahman
শিরোনাম :
জার্মানবাংলা’র ‘মিউজিক্যাল লাইভ শো’র এবারের অতিথি কণ্ঠশিল্পী ”ফারজাহান রহমান শাওন” বাগেরহাটে ৭ দিনব্যাপী বই মেলা শুরু জার্মানবাংলা’র ‘মিউজিক্যাল লাইভ শো’র এবারের অতিথি, বাচিকশিল্পী “জান্নাতুল ফেরদৌসী লিজা” টিকার দ্বিতীয় ডোজ ৮ সপ্তাহ পর : স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ১৪ ফেব্রুয়ারি, উপেক্ষিত ‘সুন্দরবন দিবস’ জীবননগর পৌর নির্বাচন : আচরণবিধি লঙ্ঘন ,৩ জনের সাজা জার্মানবাংলা’র ‘মিউজিক্যাল লাইভ শো’র এবারের অতিথি শিল্পী ”বিথী পান্ডে” বাগেরহাটে ওরিয়ন গ্রুপের বিরুদ্ধে গ্রাম্য সড়ক দখলের অভিযোগ বাগেরহাটে জুয়েলারি দোকান হতে ১০০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার চুরি জার্মানবাংলা’র ‘মিউজিক্যাল লাইভ শো’র এবারের অতিথি শিল্পী “সুনীল সূএধর”

বিএনপিতে ‘সন্দেহ’ আ.লীগের ‘কৌশলে’!

জার্মানবাংলা২৪ রিপোর্ট :
  • প্রকাশের সময়: মঙ্গলবার, ২৭ মার্চ, ২০১৮
Check for details

দুর্নীতির দায়ে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া জেলে আছেন গত ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে। খালেদা জিয়ার সাজার রায় ঘোষণার পর থেকেই বিএনপি ভাঙা নিয়ে বিভিন্ন ধরনের বক্তব্য দিচ্ছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতারা। ১৬ মার্চ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের তরফ থেকে আসা বক্তব্য বিএনপির ভেতরে কিছুটা সন্দেহের সৃষ্টি করে। বিএনপির নেতারা আওয়ামী লীগের এমন বক্তব্যকে বিএনপির মধ্যে ‘সন্দেহ-অবিশ্বাস’ ঢোকানোর অপকৌশল বলে প্রথম থেকেই উড়িয়ে দিয়েছেন।

গতকাল সোমবার ২৬ মার্চ বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্যের পর দলের মধ্যে নতুন করে ‘সন্দেহ’ তৈরি হয়েছে। আজ মঙ্গলবার বিএনপির স্থায়ী কমিটির দুজন সদস্যের সঙ্গে আলাপকালে তাঁরা বলেন, মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামের কথা অনুযায়ী ‘বড়রা’ দল ছাড়লে নিচের দিকও সামাল দেওয়া কঠিন হবে? তবে তাঁরা এ–ও বলেন, কিছু নেতারা হয়তো দল ছাড়তে পারেন, কিন্তু ভাঙবে না। অতীতে দল ছেড়ে গিয়ে নতুন দল করে কেউই সফল হতে পারেননি। তাই দল ভেঙে আলাদা দল করার মতো অবস্থা বিএনপির কোনো নেতার এই মুহূর্তে নেই।

আওয়ামী লীগ নেতারাও বলছেন, বিএনপি ভাঙবে এমনটা বলার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। কেউ কেউ দল পরিবর্তন করতে পারেন। আবার কেউ হয়তো নিষ্ক্রিয় হতে পারেন। নির্বাচন সামনে। দলটির কিছু নেতা হয়তো স্বতন্ত্র নির্বাচন করতে পারেন বা কোনো দল থেকে প্রার্থী হতে পারেন। দল ভাঙা নিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাদের বক্তব্যকে দলটির নেতারাই বলছেন, এটা রাজনীতির মাঠে একটা ‘রাজনৈতিক কৌশল’। মূলত বিএনপিকে চাপে রাখার একটি চেষ্টা।

১৬ মার্চ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এক অনুষ্ঠানে বলেছেন, ‘আমরা এখনো সম্মতি দিচ্ছি না। সারা বাংলায় আমাদের নেতারা, জনপ্রতিনিধিরা জানাচ্ছেন যে অমুক জায়গায় বিএনপির নেতা-কর্মীরা যোগ দিতে চান। আজকে বিএনপির হাজার হাজার কর্মী আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়ার অপেক্ষায় আছেন। নেত্রীর (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) কাছে থেকে আমরা গ্রিন সিগন্যাল পাইনি, সে কারণে আমরা সেই যোগদানে এখনো সম্মত হতে পারছি না। বিএনপির জোয়ারের দিন শেষ, এখন ভাটার টান।’

কাদেরের এ বক্তব্য নিয়ে যখন আলোচনা চলছে, ঠিক সেই সময় গতকাল বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল বলেছেন, ‘যতই এদিক-ওদিক থেকে টানাটানি করা হোক না কেন, বিএনপির সাধারণ নেতা-কর্মীরা কখনো দল ছেড়ে যায় না। বড়রা কেউ কেউ দল ছেড়ে যেতে পারে, নেতা-কর্মীরা কেউ যায় না।’

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর এক নেতা আজ সকালে প্রথম আলোকে বলেন, খালেদার জিয়ার কারাবাস দীর্ঘ হলে বিএনপির মধ্যে কিছু সমস্যা হবে। তবে বিএনপিকে বড় যে সংকট মোকাবিলা করতে হবে, সেটা নির্বাচনে যাওয়া না–যাওয়ার বিষয়। খালেদার অনুপস্থিতি ও বিএনপি নির্বাচন না গেলে দলের মধ্যে সংকট বাড়বে। সে ক্ষেত্রে দলত্যাগের ঘটনা ঘটবে বলে আওয়ামী লীগের অনেকেই মনে করছে।

দলের নেতাদের বক্তব্যের বিষয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য পীযূষ কান্তি ভট্টাচার্য বলেন, ‘আমাদের নির্দেশ দেওয়া আছে যে বিএনপি-জামায়াতের যারা সন্ত্রাস বা জঙ্গিবাদের সঙ্গে জড়িত, এদের কাউকে দলে না ঢোকানোর জন্য।’ তিনি বলেন, ‘দলের সাধারণ সম্পাদক যেহেতু দলের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কথা বলেছেন, এটি তাঁদের মধ্যে কথা হয়েছে। সে বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারি না।’

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা বলছেন, খালেদা জিয়া জেলে, তাঁর বড় ছেলে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ‘পলাতক’ অবস্থায় বিদেশে অবস্থান করছেন। এ অবস্থায় দল পরিচালনার জন্য নেতাদের বেগ পেতে হচ্ছে। এ ছাড়া দলটির কয়েক হাজার নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা থাকায় নেতা-কর্মীদের মনোবলও খুব বেশি চাঙা থাকার উপায় নেই। এ অবস্থায় বিএনপিতে ভাঙন বা অবিশ্বাস ঢুকে গেলে দলটি আরও বেশি চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হবে। একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে আওয়ামী লীগ কেন, যেকোনো দলই ‘কৌশলগতভাবে’ এই সুযোগ নিতে পারে।

শেয়ার করুন:
এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ফেসবুকে জার্মানবাংলা২৪

বিজ্ঞাপন

Check for details