1. jashimsarkar@gmail.com : admin :
  2. adminmonir@germanbangla24.com : monir uzzaman : monir uzzaman
  3. fatama.ruma007@gmail.com : Fatama Rahman Ruma : Fatama Rahman
  4. anikbd@germanbangla24.com : SIDDIQUE ANIK : ANIK SIDDIQUE
  5. infi@germanbangla24.com : Hasan Imam Juwel : Hasan Imam Juwel
  6. rafid@germanbangla24.com : rafid :
  7. SaminRahman@germanbangla24.com : Samin Rahman : Samin Rahman
শিরোনাম :
জার্মানির মানহাইমে জমজমাট ঈদ পুনর্মিলনী ও গ্রিল পার্টি লেবাননে শাহ্জালাল প্রবাসী সংগঠনের দ্বশম বর্ষ পূর্তি উদযাপন ও সভাপতিকে বিদায়ী স্বংবর্ধনা করোনা টিকার প্রসঙ্গে ও করোনার তৃতীয় ঢেউ: মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া রাষ্ট্রদূত, জার্মানি বাংলাদেশ জার্মান জাতীয়তাবাদী কালচারাল অ্যাসোসিয়েশনের বনভোজন অনুষ্ঠিত ঝালকাঠিতে সেপটি ট্যাংকের সেন্টারিং খুলতে গিয়ে নিহত ২ জামালপুরে ‘বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন’ এর মাক্স বিতরণ করোনা : সখীপুরে লকডাউন বিধিনিষেধ অমান্য করায় জরিমানা করোনা : সাতক্ষীরা পুলিশের মোটরসাইকেল র‌্যালি ও মাস্ক বিতরণ লেবানন বিএনপির সভাপতি বাবু, সম্পাদক আইমান, সাংগঠনিক হাবিব সখীপুরে ‘মুক্তিযুদ্ধের কবিতা’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

জার্মানি থেকে ইউরো পাচার করছে লেবানিজ গ্যাং

জার্মানবাংলা২৪ রিপোর্ট :
  • প্রকাশের সময়: মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর, ২০১৮
Check for details

ফাতেমা রহমান রুমা: দক্ষিণ অ্যামেরিকার দেশগুলো থেকে মাদকের বিনিময়ে জার্মানি থেকে তারা অর্থ পাচার করে বলে স্বীকার করেছে গ্যাংটি৷ প্যারিসে এই গ্যাং-এর সদস্যদের বিরুদ্ধে অভিযোগের শুনানি শুরু হয়েছে৷

জার্মান সরকারি চ্যানেল এনডেএর, ভেডেএর এবং স্যুডডয়চে সাইটুং পত্রিকাকে সুযোগ দেয়া হয়েছিল এই মামলার নথিপত্র দেখার৷ এগুলো দেখে সাংবাদিকরা নিশ্চিত যে, বিশ্বব্যাপী কোকেন এবং অর্থপাচারে এই গ্যাং-এর নেটওয়ার্ক রয়েছে৷

২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে মার্কিন ড্রাগ এনফোর্সমেন্ট এজেন্সি ডিইএ সন্দেহভাজন গ্যাং সদস্য এবং কলম্বিয়ার মাদক পাচারকারীদের কথোপকথোন রেকর্ড করতে সফল হয়৷ একই ধরনের ঘটনা নিয়ে তদন্ত করছিলো ফ্রান্সের কর্তৃপক্ষ৷ তারা এ ধরনের কয়েকশ’ টেলিফোন কথোপকথোন রেকর্ড করেছিল৷ দুই পক্ষের আলোচনা থেকে তারা এটা নিশ্চিত হন যে ইউরোপের পশ্চিমাঞ্চলে এই গ্যাং-এর সদস্যরা ছড়িয়ে রয়েছে৷ তবে এদের নেটওয়ার্ক রয়েছে মধ্যপ্রাচ্য, আফ্রিকা এবং দক্ষিণ অ্যামেরিকায়৷

মাদকপাচারের মাধ্যমে ইউরোপ থেকে লাখ লাখ ইউরো পাচারের অভিযোগে এখন পর্যন্ত ১৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে৷ এদের প্রায় সবাই লেবাননের নাগরিক অথবা লেবানিজ বংশোদ্ভূত৷ তদন্তকর্মকর্তাদের ধারণা এই গ্যাংটি ইউরোপে কর্মকাণ্ড চালালেও মূলত লেবানন থেকে এদের নিয়ন্ত্রণ করা হয়৷

ইউটু খ্যাত বোনোর নাম আছে প্যারাডাইস পেপার্সে৷ তিনি নুড এস্টেটস নামে মাল্টার এক কোম্পানিতে বিনিয়োগ করেছিলেন৷ কোম্পানিটি লিথুয়ানিয়ার একটি শপিং মল নিয়ে হওয়া সন্দেহজনক চুক্তির সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে৷ মাল্টা উদার কর নীতির জন্য পরিচিত৷ বোনোর মুখপাত্র অবশ্য কোনো অপরাধের কথা অস্বীকার করেছে৷

প্রতি সপ্তাহে জার্মানিসহ অন্যান্য দেশ থেকে ১০ লাখ ইউরো ইউরোপের বাইরে পাচার করত তারা৷ ২০১৬ সালের জানুয়ারিতে বড় ধরনের একটি তদন্ত হয় এ বিষয়ে৷ ছ’টি দেশে সন্দেহভাজনদের বাড়িতে তল্লাশি চালায় পুলিশ৷ সন্দেহভাজনদের গ্রেপ্তারের পাশাপাশি ৮ লাখ নগদ ইউরো জব্দ করে তারা৷ জার্মানি থেকে চারজন আটক হয়৷

এই সদস্যদের মধ্যে কাজ ভাগ করা থাকে৷ যেমন আখেনের কাছ থেকে যে ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছিল, সে জার্মানি, বেলজিয়া, স্পেন, ইটালি এবং ফ্রান্সে নগদ অর্থের বিনিময়ে মাদক বিক্রি করত৷ এরপর সেই অর্থ সে অন্য সদস্যদের ভাগ করে দিয়ে তাদের অলংকার, দামি ঘড়ি এবং দামি গাড়ি কিনতে বলত৷ এরপর তারা সেগুলো লেবাননে নিয়ে বিক্রি করত৷ এরপর সেই অর্থ সরাসরি চলে যেত দক্ষিণ অ্যামেরিকার মাদক ব্যবসায়ীদের হাতে৷

কর্তৃপক্ষ এখন তদন্ত করছে এই গ্যাং-এর সদস্যরা হেজবুল্লাহর হয়ে কাজ করছে কিনা৷ যদিও এখন পর্যন্ত তারা এমন কোনো তথ্য পাননি যে এই অর্থ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে ব্যবহৃত হচ্ছে৷

তদন্ত কর্মকর্তাদের ধারণা, অবৈধ ব্যবসার জন্য জার্মানি হচ্ছে ইউরোপের মূল কেন্দ্র৷তবে এই গ্যাং সদস্যদের মধ্যে একজন আলী জেড সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ‘‘তিনি নির্দোষ৷ তার ব্যবসা বৈধ৷”

জার্মানির ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট এই মামলা করেছে৷ গত বছর ৬০ হাজার ইউরো অর্থ পাচারের মামলা করেছে তারা৷ প্যারিসে এই মামলার অভিযোগের শুনানি এ মাসের শেষ পর্যন্ত চলবে বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা৷ ফল্কমার কাবিশ, ইয়ান লুকাস স্ট্রোজিক, বেনেডিক্ট স্ট্রুনৎস/এপিবি

শেয়ার করুন:
এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ফেসবুকে জার্মানবাংলা২৪

বিজ্ঞাপন

Check for details