চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনায় ইলিশ আহরণ নিষিদ্ধ

মা ইলিশ নিরাপদ প্রজননের লক্ষ্যে চাঁদপুরে ও পদ্মা-মেঘনাসহ দক্ষিণাঞ্চলের নদীতে মঙ্গলবার মধ্যরাত ৯ অক্টোবর থেকে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত ২২ দিন ইলিশ আহরণ নিষিদ্ধ হওয়ায় জেলেরা নদী থেকে মাছ ধরার নৌকা তীরে ভিড়িয়ে রাখছেন।
Check for details

জার্মান-বাংলা ডেস্ক:মা ইলিশ নিরাপদ প্রজননের লক্ষ্যে মঙ্গলবার মধ্যরাত থেকে চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনায় ইলিশ আহরণ নিষিদ্ধ করেছে সরকার। জেলার মতলব উত্তর উপজেলার ষাটনল থেকে লক্ষীপুর জেলার চর আলেকজেন্ডার পর্যন্ত ১শ’ কিলোমিটার নদী উপকুলীয় এলাকা ৯ থেকে ৩০ অক্টোবর ২২ দিন ইলিশ আহরণ, পরিবহন, বাজারজাতকরণ, ক্রয়-বিক্রয়, মজুদ ও বিনিময় সম্পূর্ণরুপে নিষিদ্ধ থাকবে।
চাঁদপুর জেলা মৎস্য বিভাগ জানিয়েছে, সরকার ঘোষিত ২২ দিনের এই অভয়াশ্রম কর্মসূচি বাস্তবায়নে জেলা টাস্কফোর্স তৎপর রয়েছে। নিষেধাজ্ঞার সময়ে কোন জেলে নদীতে নামতে পারবে না। আইন অমান্যকারীকে মৎস্য আইনে সাজা প্রদান করা হবে।

জাতীয় সম্পদ ইলিশ উৎপাদন বৃদ্ধি ও মা ইলিশ রক্ষায় জেলা টাস্কফোর্সের উদ্যোগে চাঁদপুর সদর, মতলব উত্তর, মতলব দক্ষিন ও হাইমচর উপজেলার জেলে পল্লী, মৎস্য ব্যবসাকেন্দ্রসহ পাড়া মহল্লায় ইলিশ আহরণ থেকে বিরত থাকার জন্য জেলেদের মাঝে সচেতনতামূলক প্রচারণা অব্যাহত রয়েছে।
৯ থেকে ৩০ অক্টোবর এই সময়ে ৮০ শতাংশ মা ইলিশ ডিম পাড়ে। তারা ডিম পাড়ে মূলত মিঠাপানিতে। তাই আশ্বিনের পূর্ণিমার চারদিন আগে এবং পূর্ণিমার পর ১৮ দিন মোট ২২ দিন দেশের উপক‚লীয় অঞ্চল, নদীর মোহনাসহ যেসব জেলা ও নদীতে ইলিশ পাওয়া যায়, সেখানে মাছ ধরা নিষিদ্ধ থাকবে।
চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান খান বলেন, ৯ থেকে ৩০ অক্টোবর ২২ দিন ইলিশ আহরণ, পরিবহন, বাজারজাতকরণ, ক্রয়-বিক্রয়, মজুদ ও বিনিময় সম্পূর্ণরুপে নিষিদ্ধ থাকবে। নদীতে ২৪ ঘন্টা টাস্ক ফোর্সের পাশা-পাশি কোস্টগার্ড মোতায়েন থাকবে। কোন অনিয়ম বরদাশত করা হবেনা। উল্লেখ্য, চাঁদপুর জেলায় প্রায় ৫২ হাজার নিবন্ধিত জেলে রয়েছে।

Facebook Comments