1. jashimsarkar@gmail.com : admin :
  2. adminmonir@germanbangla24.com : monir uzzaman : monir uzzaman
  3. fatama.ruma007@gmail.com : Fatama Rahman Ruma : Fatama Rahman
  4. anikbd@germanbangla24.com : SIDDIQUE ANIK : ANIK SIDDIQUE
  5. infi@germanbangla24.com : Hasan Imam Juwel : Hasan Imam Juwel
  6. rafid@germanbangla24.com : rafid :
  7. SaminRahman@germanbangla24.com : Samin Rahman : Samin Rahman
শিরোনাম :
পদ্মায় ফেরিডুবি :পাটুরিয়ায় ডুবে গেছে শাহ আমানত ফেরি জার্মানিতে বিএনপি’র কর্মীসভা ‘বর্তমান সরকার উন্নয়নের সরকার’ : এমপি ছেলুন জোয়ার্দ্দার জার্মান বিএনপির হেছেন প্রাদেশিক কমিটির কর্মী সভা অনুষ্ঠিত জার্মানির মানহাইমে জমজমাট ঈদ পুনর্মিলনী ও গ্রিল পার্টি লেবাননে শাহ্জালাল প্রবাসী সংগঠনের দ্বশম বর্ষ পূর্তি উদযাপন ও সভাপতিকে বিদায়ী স্বংবর্ধনা করোনা টিকার প্রসঙ্গে ও করোনার তৃতীয় ঢেউ: মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া রাষ্ট্রদূত, জার্মানি বাংলাদেশ জার্মান জাতীয়তাবাদী কালচারাল অ্যাসোসিয়েশনের বনভোজন অনুষ্ঠিত ঝালকাঠিতে সেপটি ট্যাংকের সেন্টারিং খুলতে গিয়ে নিহত ২ জামালপুরে ‘বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন’ এর মাক্স বিতরণ

গড়াই নদীর ভাঙ্গনে বিলিন হচ্ছে ঘর-বাড়ি, ফসলি জমি

জার্মানবাংলা২৪ রিপোর্ট :
  • প্রকাশের সময়: বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
Check for details

রামিম হাসান, ঝিনাইদহ থেকে: ঝিনাইদহের শৈলকুপায় গড়াই নদীর ভাঙ্গনে বিলিন হচ্ছে ফসলি জমি। এর মধ্যে মানচিত্র থেকে হারিয়ে গেছে ৬নং সারুটিয়া ইউনিয়নের বরুলিয়া গ্রামসহ গ্রামের বাসিন্দাদের ১ হাজার ৪০০ বিঘারও অধিক ফসলি জমি।

এছাড়া ভাঙ্গনের কবলে পড়েছে একই ইউনিয়নের কৃষ্ণনগর গ্রামের অধিকাংশ ফসলি জমি। ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে কিত্তিনগর, গোসাইডাঙ্গা, ৭নং হাকিমপুর ইউনিয়নের মাদলা, ৮নং ধলহরাচন্দ্র ইউনিয়নের কাশিনাথপুর, উলুবাড়িয়া, মাজদিয়াতে। হুমকিতে রয়েছে লাঙ্গলবাধ বাজার ও আদিলউদ্দিন ডিগ্রীকলেজ।

ভাঙ্গন কবলিত ৬নং সারুটিয়া ইউনিয়নের কৃষ্ণনগর গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল মালেক জানান গড়াই নদীর ভাঙ্গন তীব্র আকার ধারণ করেছে।

তার চাচা সাজদ্দিমন্ডল, জেনামন্ডল, মিনা মন্ডলসহ তার সরিকদের ৬০ বিঘা ফসলি জমিসহ গ্রামের অধিকাংশ ফসলি জমি বিলিন হয়েছে নদীগর্ভে। বাকিটাও চলে যাওয়ার উপক্রম। তিনি আরো জানান সব কিছু হারিয়ে বর্তমানে পরের জায়গায় বসবাস। ভাঙ্গন থেকে আর ৪/৫ হাত দুরেতার শেষ আশ্রয়স্থল। কর্তৃপক্ষ দ্রুতব্যবস্থা নানিলে সেটিও হারাতে হবে তার।

গ্রামের অপর বাসিন্দা আশরাফ আলী জানান তাদের ১শত বিঘারও বেশী ফসলি জমি গড়াই নদীর ভাঙ্গনে চলে গেছে বাকী টা যাওয়ার পথে।

নদীগর্ভে সম্পূর্ণ বিলিন হওয়া বরুলিয়া গ্রামের বাসিন্দা আফসার সদ্দার জানান, সব কিছু হারিয়ে তারা এখন
ভূমিহীন। তাদের গ্রামের ১ হাজার ৪০০ বিঘারও অধিক ফসলি জমি সহ গ্রামের সবকিছুই হারিয়ে গেছে নদীগর্ভে। গড়াই নদীর ওপারে তাদের জমি জেগে উঠলেও খোকশা অঞ্চলের একটি প্রভাবশালী মহলের কারনে তাদের পৈত্রিক সম্পত্তি তারা দখল নিতে পারছে না।

৬নং সারুটিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান মামুন জানান তারই ইউনিয়নে বরুলিয়া, কৃষ্ণনগর, কিত্তিনগর ও গোসাইডাঙ্গা গ্রামে গড়াই নদীর তীব্র ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। এরই মধ্যে বরুলিয়া গ্রামে সম্পূর্ণ বিলিন হয়েছে। নদীগর্ভে চলেগেছে কৃষ্ণনগর গ্রামের অধিকাংশ ফসলি জমি। এছাড়া ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে কিত্তিনগর ও গোসাইডাঙ্গা গ্রামে। পানি উন্নয়ন বোর্ড দ্রুতব্যবস্থা না নিলে বিলিন হবে অধিকাংশ ফসলি জমি।

এছাড়া ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে ৭নং হাকিমপুর ইউনিয়নের মাদলা ও ৮নং ধলহরাচন্দ্র ইউনিয়নের কাশিনাথপুর, মাজদিয়া ও উলুবাড়িয়া গ্রামে।

মাজদিয়া গ্রামের মহর আলী বিশ্বাস জানান ৮নং ধলহরাচন্দ্র ইউনিয়নে তার গ্রাম সহ নদীপাড়ের বিভিন্ন গ্রামে দেখা দিয়েছে ভাঙ্গন। ভাঙ্গনরোধে কর্তৃপক্ষ দ্রুতব্যবস্থা না নিলে নদীগর্ভে চলে যাবে কয়েক গ্রামের অধিকাংশ ফসলি জমি।

ভাঙ্গন রোধে ঝিনাইদহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের শৈলকুপা অঞ্চলের দায়িত্ব প্রাপ্তকর্মকর্তা উপ-সহকারী প্রকৌশলী সুলতান মাহমুদ জানান ৬নং সারুটিয়া, ৭নং হাকিমপুর ও ৮নং ধলহরাচন্দ্র ইউনিয়নে গড়াই নদীর ভাঙ্গন কবলিত এলাকা তারা পরিদর্শন করেছেন। নদী শাসন করে এ অঞ্চলের বাকী ফসলি জমি সহ ঘরবাড়ি বাঁচাতে তাদের কর্ম পরিকল্পনা বোর্ডে পাঠানো হয়েছে। নির্দেশনা এলেই তারা ভাঙ্গন রোধে দ্রুত ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান।

শেয়ার করুন:
এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ফেসবুকে জার্মানবাংলা২৪

বিজ্ঞাপন

Check for details