1. jashimsarkar@gmail.com : admin :
  2. adminmonir@germanbangla24.com : monir uzzaman : monir uzzaman
  3. fatama.ruma007@gmail.com : Fatama Rahman Ruma : Fatama Rahman
  4. anikbd@germanbangla24.com : SIDDIQUE ANIK : ANIK SIDDIQUE
  5. infi@germanbangla24.com : Hasan Imam Juwel : Hasan Imam Juwel
  6. rafid@germanbangla24.com : rafid :
  7. SaminRahman@germanbangla24.com : Samin Rahman : Samin Rahman
শিরোনাম :
লেবাননে প্রবাসী অধিকার পরিষদের ইফতার মাহফিল বেগম জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেবে সরকার : অ্যাটর্নি জেনারেল করোনা : ভারতে শনাক্ত ২ কোটি ছাড়াল করোনা : বিধিনিষেধ আবারও বাড়ল, চলবে না দূরপাল্লার বাস অল ইউরোপ বাংলাদেশ প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফয়সাল ও সম্পাদক ফারুক মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিল জামালপুরে নতুন কমিটি গঠন জেলহাজতে শিশু বক্তা রফিকুল ইসলাম মাদানী জার্মানবাংলা’র ‘মিউজিক্যাল লাইভ শো’র এবারের অতিথি কণ্ঠশিল্পী “আঁখি হালদার” আয়েবপিসি’র কার্যনির্বাহী পরিষদের বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত জার্মানবাংলা’র ”প্রবাসির সাফল্য” শো’র এবারের অতিথি ”শিরীন আলম”

কোটচাঁদপুরে বিদ্যালয়ের প্লাস্টার খোসে পড়ে এক ছাত্রী আহত

জার্মানবাংলা২৪ রিপোর্ট :
  • প্রকাশের সময়: মঙ্গলবার, ২৪ জুলাই, ২০১৮
Check for details

মোঃ নজরুল ইসলাম, কোটচাঁদপুর (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি: কোটচাঁদপুর বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শ্রেণীকক্ষের সিলিং’র প্লাস্টার খোসে বৈশাখী আক্তার (১৩) নামের অষ্টম শ্রেণীর একছাত্রী আহত হয়েছে। আহত বৈশাখীকে স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার ২৪ জুলাই দুপুরে এই ঘটনা ঘটে বলে জানা যায়।

শ্রেণীকক্ষের প্লাস্টার খোসে পড়ার ঘটনায় ছাত্রীদের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। তারা দ্রুত শ্রেণীকক্ষ ত্যাগ করে বাইরে বেরিয়ে আসে। এ অবস্থায় কর্তৃপক্ষ তাৎক্ষণিকভাবে স্কুল ছুটি দিয়ে দেয়।

কোটচাঁদপুর বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইসাহক আলী জানান, দুপুর সাড়ে ১২ টায় ১০৫ নং কক্ষে অষ্টম শ্রেনীর ক্লাস চলছিল। এ সময় আকষ্মিক ভাবে সিলিং’র প্লাস্টার খোসে পড়লে ক্লাসের পাঠরত বৈশাখী (১৩) আহত হয়। খোসে পড়া প্লাস্টার বৈশাখীর কোমর ও ঘাড়ে পড়লে সে হঠাৎ অজ্ঞান হয়ে পড়ে। বৈশাখীর অবস্থা দেখে সহপাঠীরাও দ্রুত ছোটাছুটি করে বেরিয়ে আসে।

তিনি আরো জানান, ১৯৫৩ সালে বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর ষাটের দশকের প্রথম দিকে স্কুলের এ ভবণ নির্মাণ করা হয়। প্রায় ষাট বছর যাবত জোড়াতালি দিয়ে শিক্ষার্থীদের পাঠদান কার্যক্রম চালু রাখা হয়েছে। বর্মমানে এ ভবন ব্যবহার অনুপযোগী হওয়ার পরও শ্রেণী কক্ষের সংকটের কারণের বাধ্য হয়েই এখানে ক্লাস নেওয়া হচ্ছে।

বিগত দিনে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে ভবনের দৈন্য দশার বিবরণ দিয়ে পত্র মারফত ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানানো হয়।এর প্রেক্ষিতে ২০১৫ সালের শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরে কর্মকর্তা সরেজমিনে পরিদর্শন করে ভবনটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করেন। উপজেলা প্রশাসনও এ ভবনের ক্লাস না নেওয়ার জন্য পরামর্শ দেন। কিন্তু উপজেলা একমাত্র বালিকা বিদ্যালয়টিতে ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত প্রায় ১২০০ ছাত্রী লেখা পড়া করছে। তাছাড়া একই সাথে ১৮টি শ্রেণী কক্ষে শিক্ষকদের ক্লাস নিতে হয়। সে কারণে ইচ্ছা না থাকলেও কক্ষ সংকটের কারণে পরিত্যক্ত ভবনেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ক্লাস নিতে হচ্ছে।

এদিকে প্লাস্টার খোসে ছাত্রী আহত ঘটনায় অভিভাবকরাও উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন।

কোটচাঁদপুর উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার রতন মিয়া বলেন, আমি শুনেছি ও খোঁজ নিয়ে জেনেছি যে,সে এখন অনেকটা সুস্থ্য এবং উক্ত ভবন পরিত্যক্ত কি না আমার জানা নাই।

শেয়ার করুন:
এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ফেসবুকে জার্মানবাংলা২৪

বিজ্ঞাপন

Check for details