1. jashimsarkar@gmail.com : admin :
  2. adminmonir@germanbangla24.com : monir uzzaman : monir uzzaman
  3. fatama.ruma007@gmail.com : Fatama Rahman Ruma : Fatama Rahman
  4. anikbd@germanbangla24.com : SIDDIQUE ANIK : ANIK SIDDIQUE
  5. infi@germanbangla24.com : Hasan Imam Juwel : Hasan Imam Juwel
  6. rafid@germanbangla24.com : rafid :
  7. SaminRahman@germanbangla24.com : Samin Rahman : Samin Rahman
শিরোনাম :
জার্মান বিএনপির হেছেন প্রাদেশিক কমিটির কর্মী সভা অনুষ্ঠিত জার্মানির মানহাইমে জমজমাট ঈদ পুনর্মিলনী ও গ্রিল পার্টি লেবাননে শাহ্জালাল প্রবাসী সংগঠনের দ্বশম বর্ষ পূর্তি উদযাপন ও সভাপতিকে বিদায়ী স্বংবর্ধনা করোনা টিকার প্রসঙ্গে ও করোনার তৃতীয় ঢেউ: মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া রাষ্ট্রদূত, জার্মানি বাংলাদেশ জার্মান জাতীয়তাবাদী কালচারাল অ্যাসোসিয়েশনের বনভোজন অনুষ্ঠিত ঝালকাঠিতে সেপটি ট্যাংকের সেন্টারিং খুলতে গিয়ে নিহত ২ জামালপুরে ‘বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন’ এর মাক্স বিতরণ করোনা : সখীপুরে লকডাউন বিধিনিষেধ অমান্য করায় জরিমানা করোনা : সাতক্ষীরা পুলিশের মোটরসাইকেল র‌্যালি ও মাস্ক বিতরণ লেবানন বিএনপির সভাপতি বাবু, সম্পাদক আইমান, সাংগঠনিক হাবিব

কাজিপুরে যমুনা নদীর বাঁধ নির্মানের দাবীতে মানববন্ধন

জার্মানবাংলা২৪ রিপোর্ট :
  • প্রকাশের সময়: সোমবার, ২২ এপ্রিল, ২০১৯
alamgir kabir Attachments15:36 (6 hours ago) to me Translate message Turn off for: Bangla কাজিপুরে যমুনা নদীর বাঁধ নির্মানের দাবীতে শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসীর মানববন্ধন
Check for details

এইচ এম আলমগীর কবির, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি:যমুনা নদী ভাঙ্গনের হাত থেকে স্কুল, কলেজ, মাদ্রসা, কমিউনিটি ক্লিনিক রক্ষায় সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে বাঁধ নির্মানের দাবীতে মানববন্ধন করেছে স্কুল কলেজের শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী।

সোমবার দুপুরে কাজিপুর উপজেলার মনসুর নগর ইউনিয়নের মাজনাবাড়ি যমুনার তীরে এই মানব-বন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
প্রায় ঘন্টাব্যাপী এই মানব-বন্ধন চলাকালে বক্তব্য রাখেন মনসুর নগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, সাবেক চেয়ারম্যান, গোলজার হোসেন ও মাজনাবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কামাল হোসেন প্রমুখ।

এসময় বক্তরা বলেন, কাজিপুর উপজেলার মনসুর নগর ও চরগিরিস ইউনিয়নের দুটি কলেজ, ৮টি নিম্নমাধ্যমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৩০টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৫৫টি ছোট বড় ব্রীজ, ১৪টি হাট-বাজার, ১টি মা ও শিশু কল্যান কেন্দ্র, দুটি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্র, ১৮টি কমিউনিটি ক্লিনিক সহ ১৮ হাজার একর ফসলি জমি নদী ভাঙ্গনের হাত থেকে রক্ষা করতে হলে বাঁধ নির্মান জরুরী। তা না হলে বর্ষা মৌসুমে এই স্থাপনা গুলো নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যেতে পারে।

শেয়ার করুন:
এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ফেসবুকে জার্মানবাংলা২৪

বিজ্ঞাপন

Check for details